আল জামি'আতুল আরাবিয়া দারুল হিদায়াহ-পোরশা

                                                  


বরাবর,
প্রধান মুফতি সাহেব হুজুর, আল জামিয়া আল আরাবিয়া দারুল হিদায়া।
বিষয়: সুন্নত তরীকায় কবর জিয়ারত প্রসঙ্গে।
প্রশ্ন: জনাব, সবিনয় নিবেদন এই যে, আমি হাঃ মাওঃ মোঃ বায়েজীদ হোসাইন, খতিব কেরামতিয়া জামে মসজিদ, রংপুর। আমাদের কেরামতিয়া মসজিদের ভিতরে একটি মাজার আছে। সেখানে লোকজন কবর জিয়ারত করে কবরের দিকে হাত তোলে। অনেক সময় কিবলার দিকে হয়ে আবার কখনো কিবলার দিক ছাড়া। এখন আমার জানার বিষয় হলো যে, কবর জিয়ারতের সুন্নত তরীকা কি? কুরআন ও হাদীসের নুসুসের আলোকে বিস্তারিতভাবে জানালে আমরা উপকৃত হতাম।
নিবেদক
হাঃ মাওলানা মোঃ বায়েজীদ হোসাইন
খতিব, কেরামতিয়া জামে মসজিদ রংপুর।
بسم الله الرحمن الرحيم،حامدا و مصليا و مسلما-
সমাধান: কবর জিয়ারতের সুন্নত তরীকা হলো: কবর জিয়ারতকারী ব্যক্তি কবরস্থানে প্রবেশ করে মাইয়িতের চেহারামুখী হয়ে দাঁড়াবে। অর্থাৎ পায়ের দিক থেকে পশ্চিম পাশে গিয়ে দাঁড়াবে। অবশ্য এভাবে সম্ভব না হলে যেভাবে সম্ভব সেভাবে দাঁড়াতে পারবে। এরপর কবরবাসীর উদ্দেশ্যে এভাবে সালাম দিবে,السلام عليكم يا أهل القبور يغفر الله لنا و لكم أنتم سلفنا و نحن بالأثر. অর্থ: হে কবরবাসী! তোমাদের প্রতি শান্তি বর্ষিত হোক। আল্লাহ তায়ালা তোমাদের ও আমাদেরকে ক্ষমা করুন। তোমরা আমাদের পূর্ববর্তী আর আমরা তোমাদের পরবর্তী। হাদীস শরীফে এসেছে, عن بن عباس رضي الله عنه قال مر رسول اللهﷺ بقبور المدينة فأقبل عليهم بوجهه فقال: السلام عليكم يا أهل القبور يغفر الله لنا و لكم أنتم سلفنا و نحن بالأثر অর্থাৎ হযরত ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মদিনার একটি কবরস্থানের পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। তখন তিনি তাঁর চেহারা মোবারককে কবরবাসীর দিকে করে তাদের উদ্দেশ্যে এভাবে সালাম দিলেন। (তিরমিযি শরীফ, ১/২০৩, হাদীস নং-২৫৩)।
এরপর দরুদ শরীফ ও কুরআন মাজিদ থেকে যতটুকু সম্ভব হয় তিলাওয়াত করে মাইয়িতের জন্য সওয়াব রেসানী করবে। বিশেষ করে যে সমস্ত তিলাওয়াতের কথা কুরআনে বর্ণিত হয়েছে। عن معقل بن يسار قال قال رسول الله ﷺ إقرؤا يٰس على موتاكم অর্থাৎ হযরত মাক্বিল ইবনে ইয়াসার (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, তোমরা তোমাদের মৃত ব্যক্তির জন্য সূরা ইয়াছিন পাঠ করো। (আবু দাউদ শরীফ-২/৪৪৫, হাদীস নং-৩১২১)।————————————————
এছাড়া হাদীসে সূরা বাকারার প্রথম ও শেষের কয়েকটি আয়াত পড়ার কথাও বর্ণিত হয়েছে। (দেখুন- মেশকাত শরীফ পৃ. নং-১৪৯)। কোরআন তিলাওয়াতের পর চাইলে হাত তুলেও দুআ করতে পারবে। আবার হাত তোলা ছাড়াও দুআ করতে পারবে। যদি হাত তুলে দুআ করে, তাহলে কবরের দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে কিবলার দিকে মুখ করে দুআ করবে। হাদিসে এসেছে, في حديث ابن مسعود (رأيت رسول الله ﷺ فى قبر عبد الله ذي النجدين) الحديث (فلما فرغ من دفنه استقبل القبلة رافعا يديه). অর্থাৎ রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাহাবী জুন নাযদাইন (রা.) এর দাফনের পর কিবলামুখী হয়ে দুহাত তুলে তাঁর জন্য দুআ করলেন। (ফাতহুল বারী, খ–১১, পৃ.-১৪৪)।
আরেকটি হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, قالت عائشة الا احدثكم عنى وعن رسول الله صلى الله عليه وسلم قلنا بلى قال قالت لما كانت ليلتى التى كان النبى صلى الله عليه و سلم فيها عندى انقلب فوضع ردائه وخلع نعليه فوضعهما عند رجليه وبسط طرف ازاره على فراشه فاضطجع فلم يلبث الا ريث ما ظن ان قد رقدت فاخذ ردائه رويدا وانتعل رويدا وفتح الباب رويدا فخرج ثم اجافه رويدا فجعلت درعي في رأسي و اختمرت و تقنعت إزاري ثم انطلقت على اثره حتى جاء البقيع فقام فاطال القيام ثم رفع يديه ثلاث مرات.
অর্থাৎ, হযরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এক রাতে আমার বাড়িতে ছিলেন। গভীর রাতে তিনি যখন বুঝলেন আমি ঘুমিয়ে পড়েছি, তখন আস্তে আস্তে দরজা খুলে বাহিরে বের হলেন। আমি তখনও ঘুমাইনি। তাই আমি তাঁর পিছনে পিছনে বের হলাম এবং দেখলাম তিনি জান্নাতুল বাকী কবরস্থানে গিয়ে দীর্ঘ সময় দাঁড়িয়ে থাকলেন এবং দুআর জন্য তিনবার হাত তুললেন। (সহীহ মুসলিম- হাদীস নং-৯৭৪)।———————————————————-

الاحالة الشرعية على المطلوب

في “مشكوة المصابيح” (1/149) عن عبد الله بن عمر رضي الله عنه قال سمعت النبي ﷺ يقول: إذا مات احدكم فلا تحبسوه واسرعوا به إلى قبره وليقرأ عند رجليه بخاتمة البقرة.—————————————————–

في ” رد المحتار” (3/179) و في شرح اللباب للمنلا علي قاري : ثم من أَّداب الزيارة ما قالوا من أنه يأتي الزائر من قبل رجلي المتوفى لا من قبل رأسه لأنه أتعب لبصر الميت بخلاف الأول لأنه يكون مقابل بصره؛ لكن هذا إذا أمكنه وإلا فقد ثبت: أنه عليه السلام قرأ أول سورة البقرة عند رأس ميت وأخرها عند رجليه………………………………………….

و في ” ٳمداد الفتاح” (608) و السنة زيارتها قائما. والدعاء عندها قائما. كما كان يفعل رسول الله ﷺ في الخروج إلي البقيع و يقول السلام عليكم دار قوم مؤمنين و أنا إن شاء الله بكم لاحقون أسأل لي و لكم العافية… و يستحب للزا ئر قراءة يس لما ورد أنه من دخل المقابر———————————————————————————-

و في “حاشية الطحطاوي علي المراقي” (621) و المستحب في زيارة القبور ان يقف مستدبر القبلة مستقبلا وجه الميت وان يسلم ولا يمسه القبر ولا يقبله ولا يمسه فان من ذلك من عادة النصاري كذا في شرح الشرعية قال في شرح          المشكاة بعد كلام .———————————————————————————————–

وفي ” حلبي كبيري”(524) والمعهود منها ليس الا زيارتها والدعاء عندها قائما كما كان يفعله عليه السلام في الخروج الي البقيع ويقول السلام عليكم دار قوم مؤمنين وأنا ان شاءالله بكم لاحقون أسئل لي ولكم العافية ويستحب ويارة القبور وتكره للنساء لما قدمناه ويدعو قائما مستقبل القبلة وقيل يستقبل وجه الميت وفي القنية قال أبو الليث لا يعرف وضع اليد علي القبر سنة ولا مستحبا ولا نري به بأسا وقال علاء الدين التاجري هكذا وجدناه من غير نكير من السلف.

وفی”فتاوی قاسمیۃ             (10/176) قبرستان میں ہاتھ اٹھا کر اللہ تعالی سے دعا مانگنے کی گنجا‏‏ئش           ہے، اس ہات کا لحاظ ضرور رکھا جا‏‏ئے ، کہ جس کی مغفرت کی دعا کی جائے، اس کی قبر سے دوسری طرف رخ موڑ کر اللہ تعالی سے دعا مانگی جائے تاکہ کم علم لوگوں کو شک و شبہ پیدا نہ ہو سکے اور اجتماعی طور پر قبرستاں میں دعا مانگنا ثابت ہیں——  انتهى ، والله أعلم بالصواب..

Scroll to Top